ঢাকা ০৪:৩৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ




৩০ শতাংশ মানুষ জীবনসঙ্গীর থেকে লুকিয়ে টাকা নয়-ছয় করেন, দাবি মার্কিন সমীক্ষা

কালের ধারা ২৪ ডেস্ক :
  • প্রকাশিত : ০৬:৩৭:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২ ৮৪৭ বার পঠিত

প্রতীকী ছবি

কালের ধারা ২৪, অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
print news

৩০ শতাংশ মানুষ জীবনসঙ্গীর থেকে লুকিয়ে টাকা নয়-ছয় করেন, দাবি মার্কিন সমীক্ষা

জীবনসঙ্গীর অজান্তে সঞ্চিত অর্থ ব্যায় করা থেকে আয় নিয়ে মিথ্যে বলা, অর্থনৈতিক কার্যকলাপ লুকিয়ে রাখেন অনেকেই।

বিজ্ঞাপন

দাম্পত্যে প্রবঞ্চনা মানে কি শুধুই অন্য মানুষের প্রতি দুর্বলতা? একেবারেই নয়। অর্থনৈতিক দিক থেকেও সঙ্গীর প্রবঞ্চনার শিকার হন প্রতি দশ জনে তিন জন। অন্তত সাম্প্রতিকতম একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে এমনই তথ্য।

মার্কিন সংস্থার করা সমীক্ষা জানাচ্ছেন দাম্পত্য জীবনে একাধিক ধরনের অর্থনৈতিক প্রবঞ্চনার শিকার হতে হয় মানুষকে। দেখে নেওয়া যাক সঙ্গীকে না জানিয়েই কী কী ভাবে খরচ করা হয় টাকা।

এক.  গোপন কেনাকাটা: ৩১.৪ শতাংশ

দুই.  সঙ্গীর অজান্তে ধার-দেনা: ২৮.৭ শতাংশ

তিন.  আয় নিয়ে মিথ্যে কথা বলা: ২২.৬ শতাংশ

চার.  সঙ্গীর অজান্তে সঞ্চিত অর্থ খরচ: ১০.৪ শতাংশ

কিন্তু কেন এমন করেন দাম্পত্য সম্পর্কে থাকা মানুষদের এত বড় একটি অংশ? শতকরা ৩৮ জনের বক্তব্য, অযথা ঝগড়াঝাঁটি এড়ানোর জন্যই সঙ্গীর থেকে নিজেদের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড লুকিয়ে রাখেন তাঁরা। আবার ২৩ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, ভুল ভাবে খরচ করার পর সঙ্গীকে বলতে লজ্জা লাগাই এর কারণ। ১৬ শতাংশের অবশ্য দাবি, অর্থনৈতিক নিয়ন্ত্রণ নিজের হাতে রাখতেই ঘটিয়েছেন এমন ঘটনা।

তবে ৭ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, সঙ্গীর থেকে নানা ধরনের খারাপ খবর লুকিয়ে রাখতেই তাঁদের টাকা পয়সার লেনদেন করেছেন লুকিয়ে।

সূত্র: আনন্দ বাজার




ফেসবুকে আমরা







x

৩০ শতাংশ মানুষ জীবনসঙ্গীর থেকে লুকিয়ে টাকা নয়-ছয় করেন, দাবি মার্কিন সমীক্ষা

প্রকাশিত : ০৬:৩৭:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২
print news

৩০ শতাংশ মানুষ জীবনসঙ্গীর থেকে লুকিয়ে টাকা নয়-ছয় করেন, দাবি মার্কিন সমীক্ষা

জীবনসঙ্গীর অজান্তে সঞ্চিত অর্থ ব্যায় করা থেকে আয় নিয়ে মিথ্যে বলা, অর্থনৈতিক কার্যকলাপ লুকিয়ে রাখেন অনেকেই।

বিজ্ঞাপন

দাম্পত্যে প্রবঞ্চনা মানে কি শুধুই অন্য মানুষের প্রতি দুর্বলতা? একেবারেই নয়। অর্থনৈতিক দিক থেকেও সঙ্গীর প্রবঞ্চনার শিকার হন প্রতি দশ জনে তিন জন। অন্তত সাম্প্রতিকতম একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে এমনই তথ্য।

মার্কিন সংস্থার করা সমীক্ষা জানাচ্ছেন দাম্পত্য জীবনে একাধিক ধরনের অর্থনৈতিক প্রবঞ্চনার শিকার হতে হয় মানুষকে। দেখে নেওয়া যাক সঙ্গীকে না জানিয়েই কী কী ভাবে খরচ করা হয় টাকা।

এক.  গোপন কেনাকাটা: ৩১.৪ শতাংশ

দুই.  সঙ্গীর অজান্তে ধার-দেনা: ২৮.৭ শতাংশ

তিন.  আয় নিয়ে মিথ্যে কথা বলা: ২২.৬ শতাংশ

চার.  সঙ্গীর অজান্তে সঞ্চিত অর্থ খরচ: ১০.৪ শতাংশ

কিন্তু কেন এমন করেন দাম্পত্য সম্পর্কে থাকা মানুষদের এত বড় একটি অংশ? শতকরা ৩৮ জনের বক্তব্য, অযথা ঝগড়াঝাঁটি এড়ানোর জন্যই সঙ্গীর থেকে নিজেদের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড লুকিয়ে রাখেন তাঁরা। আবার ২৩ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, ভুল ভাবে খরচ করার পর সঙ্গীকে বলতে লজ্জা লাগাই এর কারণ। ১৬ শতাংশের অবশ্য দাবি, অর্থনৈতিক নিয়ন্ত্রণ নিজের হাতে রাখতেই ঘটিয়েছেন এমন ঘটনা।

তবে ৭ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, সঙ্গীর থেকে নানা ধরনের খারাপ খবর লুকিয়ে রাখতেই তাঁদের টাকা পয়সার লেনদেন করেছেন লুকিয়ে।

সূত্র: আনন্দ বাজার