ঢাকা ০১:০২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ




বিএনপির গণমিছিল ৩০ ডিসেম্বর

কালের ধারা ২৪ ডেস্ক :
  • প্রকাশিত : ০৪:৪৭:৪১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০২২ ৯০ বার পঠিত
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
print news

বিএনপির গণমিছিল ৩০ ডিসেম্বর

সরকারের পদত্যাগ, সংসদ ভেঙে দেয়া, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারসহ ১০ দফা দাবিতে বিএনপির পূর্ব ঘোষিত গণমিছিল কর্মসূচি ২৪ ডিসেম্বরের পরিবর্তে ৩০ ডিসেম্বর পালন করবে দলটি। এদিন আওয়ামী লীগের কাউন্সিল থাকায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে সারাদেশে ২৪ ডিসেম্বর গণমিছিল অনুষ্ঠিত হবে।

আজ শনিবার (১৭ ডিসেম্বর) দুপুরে নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

নজরুল ইসলাম বলেন, বিএনপি সংঘাত চায় না। বিএনপি শান্তিপূর্ণ উপায়ে সংঘাত নিরসন করতে চাই। সমস্যার সমাধান চায়। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ২৪ ডিসেম্বর তাদের কাউন্সিল থাকায় আমাদের কর্মসূচি পিছানোর আহ্বান জানিয়েছেন। আমরা আমাদের দলের পক্ষ থেকে রাজনৈতিক আচরণ করতে চাই। এজন্য ১০ দফার আলোকে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি পুনঃবিনাশ করছি।

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, যেহেতু ঢাকায় আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে, সে ক্ষেত্রে আমরা ২৪ ডিসেম্বর ঢাকায় গণমিছিল করবো না। ঢাকা বাদে সারাদেশে যে কর্মসূচি রয়েছে তা অব্যাহত থাকবে। ঢাকায় ২৪ তারিখের পরিবর্তে ৩০ তারিখ গণমিছিল করবে বিএনপি।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, অনির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে আমাদের গণতান্ত্রিক যে লড়াই সেই লড়াই জনগণকে স্মরণ করিয়ে দিতে ৩০ ডিসেম্বর গুরুত্বপূর্ণ। ২০১৮ সালে এই দিনে দিনের ভোট রাতে করে এই সরকার ক্ষমতায় এসেছিলো। সেজন্য আগামী ৩০ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগরীতে ১০ দফার আলোকে এবং ভোট চুরি ও ভোট জালিয়াতি দুর্নীতিবাজ, গণবিরোধী সরকারের পদত্যাগ, সংসদ বাতিল, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে আমাদের লড়াই এগিয়ে নেব।

তিনি বলেন, ঢাকা বাদে সারাদের নেতৃবৃন্দকে অনুরোধ করবো ২৪ ডিসেম্বরের গণমিছিল সফল করতে। আর ঢাকা মহানগরীতে ৩০ ডিসেম্বরের এই গণমিছিল যেনো সফল করে। আমাদের এই লড়াইয়ে দেশের অনেক রাজনৈতিক দল যুক্ত হয়েছে। তারা গণতন্ত্র চান, তারা জনগণের নির্বাচিত শাসন চান, তারাও অত্যাচার-অনাচারের অবসান চান, লুটপাটের অবসান চান। তাদের অনেকেই একই কর্মসূচি ঘোষণা করছেন। আগামী দিনে আমরা যুগপৎ আন্দোলের মাধ্যমে এই সরকারকে পতন ঘটাতে পারবো।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে যদি কাউন্সিলের আমন্ত্রণ জানানো হয় তাহলে যাবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাজনীতিতে যদির উপর আসলে আলোচনা হয় না। যদি আমন্ত্রণ জানান তাহলে দলে এ নিয়ে আলোচনা হবে। তারপর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

গত ১০ ডিসেম্বর রাজধানীর গোলাপবাগ মাঠে অনুষ্ঠিত বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশে ১০ দফা দাবি ঘোষণা করেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এই ১০ দফার ভিত্তিতে আগামীতে যুগপৎ আন্দোলন করবে বিএনপি ও সমমনা দলগুলো। ওই দিন ২৪ ডিসেম্বর ঢাকাসহ সারাদেশে গণমিছিল কর্মসূচি ঘোষণা দেয়া হয়।




ফেসবুকে আমরা







x

বিএনপির গণমিছিল ৩০ ডিসেম্বর

প্রকাশিত : ০৪:৪৭:৪১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০২২
print news

বিএনপির গণমিছিল ৩০ ডিসেম্বর

সরকারের পদত্যাগ, সংসদ ভেঙে দেয়া, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারসহ ১০ দফা দাবিতে বিএনপির পূর্ব ঘোষিত গণমিছিল কর্মসূচি ২৪ ডিসেম্বরের পরিবর্তে ৩০ ডিসেম্বর পালন করবে দলটি। এদিন আওয়ামী লীগের কাউন্সিল থাকায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে সারাদেশে ২৪ ডিসেম্বর গণমিছিল অনুষ্ঠিত হবে।

আজ শনিবার (১৭ ডিসেম্বর) দুপুরে নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

নজরুল ইসলাম বলেন, বিএনপি সংঘাত চায় না। বিএনপি শান্তিপূর্ণ উপায়ে সংঘাত নিরসন করতে চাই। সমস্যার সমাধান চায়। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ২৪ ডিসেম্বর তাদের কাউন্সিল থাকায় আমাদের কর্মসূচি পিছানোর আহ্বান জানিয়েছেন। আমরা আমাদের দলের পক্ষ থেকে রাজনৈতিক আচরণ করতে চাই। এজন্য ১০ দফার আলোকে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি পুনঃবিনাশ করছি।

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, যেহেতু ঢাকায় আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে, সে ক্ষেত্রে আমরা ২৪ ডিসেম্বর ঢাকায় গণমিছিল করবো না। ঢাকা বাদে সারাদেশে যে কর্মসূচি রয়েছে তা অব্যাহত থাকবে। ঢাকায় ২৪ তারিখের পরিবর্তে ৩০ তারিখ গণমিছিল করবে বিএনপি।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, অনির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে আমাদের গণতান্ত্রিক যে লড়াই সেই লড়াই জনগণকে স্মরণ করিয়ে দিতে ৩০ ডিসেম্বর গুরুত্বপূর্ণ। ২০১৮ সালে এই দিনে দিনের ভোট রাতে করে এই সরকার ক্ষমতায় এসেছিলো। সেজন্য আগামী ৩০ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগরীতে ১০ দফার আলোকে এবং ভোট চুরি ও ভোট জালিয়াতি দুর্নীতিবাজ, গণবিরোধী সরকারের পদত্যাগ, সংসদ বাতিল, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে আমাদের লড়াই এগিয়ে নেব।

তিনি বলেন, ঢাকা বাদে সারাদের নেতৃবৃন্দকে অনুরোধ করবো ২৪ ডিসেম্বরের গণমিছিল সফল করতে। আর ঢাকা মহানগরীতে ৩০ ডিসেম্বরের এই গণমিছিল যেনো সফল করে। আমাদের এই লড়াইয়ে দেশের অনেক রাজনৈতিক দল যুক্ত হয়েছে। তারা গণতন্ত্র চান, তারা জনগণের নির্বাচিত শাসন চান, তারাও অত্যাচার-অনাচারের অবসান চান, লুটপাটের অবসান চান। তাদের অনেকেই একই কর্মসূচি ঘোষণা করছেন। আগামী দিনে আমরা যুগপৎ আন্দোলের মাধ্যমে এই সরকারকে পতন ঘটাতে পারবো।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে যদি কাউন্সিলের আমন্ত্রণ জানানো হয় তাহলে যাবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাজনীতিতে যদির উপর আসলে আলোচনা হয় না। যদি আমন্ত্রণ জানান তাহলে দলে এ নিয়ে আলোচনা হবে। তারপর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

গত ১০ ডিসেম্বর রাজধানীর গোলাপবাগ মাঠে অনুষ্ঠিত বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশে ১০ দফা দাবি ঘোষণা করেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এই ১০ দফার ভিত্তিতে আগামীতে যুগপৎ আন্দোলন করবে বিএনপি ও সমমনা দলগুলো। ওই দিন ২৪ ডিসেম্বর ঢাকাসহ সারাদেশে গণমিছিল কর্মসূচি ঘোষণা দেয়া হয়।