ঢাকা ০১:১১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ




বানারীপাড়ায় পানিতে ডুবে দু’শিশুর সলিল সমাধী

নাহিদ সরদার ,বানারীপাড়া প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত : ১১:২৫:০৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০২২ ১৪২ বার পঠিত
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
print news

বানারীপাড়ায় পানিতে ডুবে দু’শিশুর সলিল সমাধী

নাহিদ সরদার ,বানারীপাড়া প্রতিনিধি॥ বরিশালের বানারীপাড়ায় পানিতে ডুবে আব্দুল্লাহ্ (৭) ও ১৯ মাস বয়সী  মাশরুর ইসলাম মাশবি নামের দুই শিশুর সলিল সমাধী হয়েছে। ১ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার সকালে উপজেলার  সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের মসজিদ বাড়ি ডিএস আলিম মাদ্রাসার পুকুর ও ইলুহার ইউনিয়নের মলুহার গ্রামের বাড়ির পাশের ডোবায় ডুবে এ দু’ শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। প্রাণঘাতি কোভিড-১৯’র তৃতীয় ঢেউয়ের ছোবল থেকে রক্ষায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে সরকার যখন দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্লাস বন্ধ ঘোষণা করেছে। ঠিক সেই সময়ে বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের মসজিদবাড়ি দারুসসুন্নাত ( ডিএস) আলিম মাদরাসার নূরাণী বিভাগ খোলা রেখে ক্লাস চলছিলো। মঙ্গলবার (১ ফেব্রুয়ারি) ক্লাসে এসে আর বাড়িতে ফেরা হলোনা ওই মাদরাসার নূরাণী বিভাগের কোমলমতি শিক্ষার্থী মো. আব্দুল্লাহর (৭)। সে মসজিদবাড়ি গ্রামের মো. জিহাদ সিকদারের ছেলে। পিতা মাতা দুজনেই জীবিকার তাগিদে রাজধানী শহর ঢাকায় থাকেন। আব্দুল্লাহ মসজিদ বাড়ি গ্রামে তার দাদা হারুন সিকদারের বাড়িতে থেকে মাদরাসায় লেখাপড়া করতো। দাদাই সকালে প্রিয় নাতিকে হাত ধরে মাদরাসায় দিয়ে এসেছিলেন বলে প্রতক্ষদর্শীরা জানান।  তবে মাদরাসা থেকে নিয়ে গেলেন দাদু ভাইর প্রাণহীন নিথর দেহ। স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে আব্দুল্লাহ সকালে মাদরাসায় গিয়ে তার সহপাঠি আমানের সাথে খেলতে ছিলো। এসময় তারা মাদ্রাসার পুকুর ঘাটে নেমে ইনজেকশনের সিরিঞ্জে পানি ডুকিয়ে একে অপরের শরীর ভিজিয়ে দিচ্ছিলো। এক পর্যায়ে আব্দুল্লাহ পা পিছলে পুকুরে পরে যায়।  তা দেখে তার সঙ্গে থাকা  সহপাঠি আমান ডাকচিৎকার করলে মাদরাসার এমএলএসএস মো. এবাদুল হক সিকদার এসে পুকুর থেকে আব্দুল্লাহকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে বানারীপাড়া উপজেলা  স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আব্দুল্লাহকে মৃত ঘোষনা করেন। পরে আব্দুল্লাহকে তার নিজ এলাকায় নিয়ে গেলে সেখানে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়।

এদিকে সন্তানের মৃত্যু খবর পেয়ে আব্দুল্লাহর পিতা-মাতা ঢাকা থেকে বাড়িতে ফেরার পরে বাদ আসর জানাজা শেষে আব্দুল্লাহকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এ বিষয়ে মসজিদবাড়ি ডিএস আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মো. আতোয়ার রহমান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার বিষয়ে কোন প্রকার সদুত্তর দিতে পারেননি। স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. পনিরুজ্জামান বলেন, সরকারি ঘোষণার পরেই ওই প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে বলা হয়েছিলো। কিন্তু তাতে কর্ণপাত না করে মাদ্রাসার নুরানী বিভাগ খোলা রাখা হয়। যার খেসারত দিতে হয়েছে কোমলমতি শিশুর জীবন দিয়ে। অপরদিকে উপজেলার ইলুহার ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মলুহার গ্রামে ড্রেজার শ্রমিক মারুফ হাসানের ১৯ মাস বয়সী একমাত্র ছেলে মাশরুর ইসলাম মাশবি ১ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে নিজ বাড়ির উঠানে খেলার ছলে পাশের ডোবায়  পরে যায়। পরে তাকে পার্শ্ববর্তী  পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোসণা করেন। ওই দিন বাদ এশা জানাজা শেষে শিশু আল-মাশবিকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এদিকে আব্দুল্লাহ্ ও আল-মাশবিকে হারিয়ে দুপরিবারে শোকের মাতম বইছে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে সরজমিন দেখাগেছে মসজিদবাড়ি ডিএস আলিম মাদরাসা ছাড়াও বানারীপাড়া উপজেলায় অনেক মাদরাসার ক্যাডেট ও কিন্ডার গার্টেন স্কুলের ক্লাসের কার্যক্রম এবং কোচিং চালু রয়েছে। যেখানে কোন প্রকার স্বাস্থবিধি মানা হচ্ছেনা।




ফেসবুকে আমরা




x

বানারীপাড়ায় পানিতে ডুবে দু’শিশুর সলিল সমাধী

প্রকাশিত : ১১:২৫:০৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০২২
print news

বানারীপাড়ায় পানিতে ডুবে দু’শিশুর সলিল সমাধী

নাহিদ সরদার ,বানারীপাড়া প্রতিনিধি॥ বরিশালের বানারীপাড়ায় পানিতে ডুবে আব্দুল্লাহ্ (৭) ও ১৯ মাস বয়সী  মাশরুর ইসলাম মাশবি নামের দুই শিশুর সলিল সমাধী হয়েছে। ১ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার সকালে উপজেলার  সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের মসজিদ বাড়ি ডিএস আলিম মাদ্রাসার পুকুর ও ইলুহার ইউনিয়নের মলুহার গ্রামের বাড়ির পাশের ডোবায় ডুবে এ দু’ শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। প্রাণঘাতি কোভিড-১৯’র তৃতীয় ঢেউয়ের ছোবল থেকে রক্ষায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে সরকার যখন দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্লাস বন্ধ ঘোষণা করেছে। ঠিক সেই সময়ে বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের মসজিদবাড়ি দারুসসুন্নাত ( ডিএস) আলিম মাদরাসার নূরাণী বিভাগ খোলা রেখে ক্লাস চলছিলো। মঙ্গলবার (১ ফেব্রুয়ারি) ক্লাসে এসে আর বাড়িতে ফেরা হলোনা ওই মাদরাসার নূরাণী বিভাগের কোমলমতি শিক্ষার্থী মো. আব্দুল্লাহর (৭)। সে মসজিদবাড়ি গ্রামের মো. জিহাদ সিকদারের ছেলে। পিতা মাতা দুজনেই জীবিকার তাগিদে রাজধানী শহর ঢাকায় থাকেন। আব্দুল্লাহ মসজিদ বাড়ি গ্রামে তার দাদা হারুন সিকদারের বাড়িতে থেকে মাদরাসায় লেখাপড়া করতো। দাদাই সকালে প্রিয় নাতিকে হাত ধরে মাদরাসায় দিয়ে এসেছিলেন বলে প্রতক্ষদর্শীরা জানান।  তবে মাদরাসা থেকে নিয়ে গেলেন দাদু ভাইর প্রাণহীন নিথর দেহ। স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে আব্দুল্লাহ সকালে মাদরাসায় গিয়ে তার সহপাঠি আমানের সাথে খেলতে ছিলো। এসময় তারা মাদ্রাসার পুকুর ঘাটে নেমে ইনজেকশনের সিরিঞ্জে পানি ডুকিয়ে একে অপরের শরীর ভিজিয়ে দিচ্ছিলো। এক পর্যায়ে আব্দুল্লাহ পা পিছলে পুকুরে পরে যায়।  তা দেখে তার সঙ্গে থাকা  সহপাঠি আমান ডাকচিৎকার করলে মাদরাসার এমএলএসএস মো. এবাদুল হক সিকদার এসে পুকুর থেকে আব্দুল্লাহকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে বানারীপাড়া উপজেলা  স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আব্দুল্লাহকে মৃত ঘোষনা করেন। পরে আব্দুল্লাহকে তার নিজ এলাকায় নিয়ে গেলে সেখানে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়।

এদিকে সন্তানের মৃত্যু খবর পেয়ে আব্দুল্লাহর পিতা-মাতা ঢাকা থেকে বাড়িতে ফেরার পরে বাদ আসর জানাজা শেষে আব্দুল্লাহকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এ বিষয়ে মসজিদবাড়ি ডিএস আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মো. আতোয়ার রহমান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার বিষয়ে কোন প্রকার সদুত্তর দিতে পারেননি। স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. পনিরুজ্জামান বলেন, সরকারি ঘোষণার পরেই ওই প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে বলা হয়েছিলো। কিন্তু তাতে কর্ণপাত না করে মাদ্রাসার নুরানী বিভাগ খোলা রাখা হয়। যার খেসারত দিতে হয়েছে কোমলমতি শিশুর জীবন দিয়ে। অপরদিকে উপজেলার ইলুহার ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মলুহার গ্রামে ড্রেজার শ্রমিক মারুফ হাসানের ১৯ মাস বয়সী একমাত্র ছেলে মাশরুর ইসলাম মাশবি ১ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে নিজ বাড়ির উঠানে খেলার ছলে পাশের ডোবায়  পরে যায়। পরে তাকে পার্শ্ববর্তী  পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোসণা করেন। ওই দিন বাদ এশা জানাজা শেষে শিশু আল-মাশবিকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এদিকে আব্দুল্লাহ্ ও আল-মাশবিকে হারিয়ে দুপরিবারে শোকের মাতম বইছে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে সরজমিন দেখাগেছে মসজিদবাড়ি ডিএস আলিম মাদরাসা ছাড়াও বানারীপাড়া উপজেলায় অনেক মাদরাসার ক্যাডেট ও কিন্ডার গার্টেন স্কুলের ক্লাসের কার্যক্রম এবং কোচিং চালু রয়েছে। যেখানে কোন প্রকার স্বাস্থবিধি মানা হচ্ছেনা।