ঢাকা ১২:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ




গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে এলজিইডির কাজে নয়ছয়

কাশিয়ানী (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি :
  • প্রকাশিত : ০৫:০০:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ ১৪৫ বার পঠিত
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
print news

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে এলজিইডির কাজে নয়ছয়

কাশিয়ানী (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে নয়ছয় করা হচ্ছে। নির্মাণের কাজ ও কার্যাদেশ না মেনে এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন ঠিকাদাররা। ঠিকাদাররা তাদের খেয়ালখুশিমতো কাজ করলেও নেয়া হচ্ছে না ব্যবস্থা। কাজের মান নিয়ে নানা ধরনের অভিযোগ থাকলেও সেগুলো ধামাচাপা পড়ে যাচ্ছে অদৃশ্য কারণে। শুধু কাজের ক্ষেত্রেই নয়, ঠিকাদারদের বিল পরিশোধের ক্ষেত্রেও নানা ধরনের অনিয়ম পরিলক্ষিত হচ্ছে।

অনুসন্ধানে উঠে এসেছে এমন নানা অনিয়মের চিত্র। এলজিইডির আওতায় ৬৩ লাখ ৬৬ হাজার টাকা ব্যয়ে উপজেলার রামদিয়া বাজার হতে ওড়াকান্দি ঠাকুর বাড়ি পর্যন্ত সড়কটির নির্মাণ শেষ হতে না হতেই ভেঙে গেছে। ২.৭ কিলোমিটার সড়কটির ৪০ স্থানেই ভেঙে গেছে। ঘৃতকান্দি এলাকায় তিনটি স্থানে সড়ক ধসে খালে মধ্যে চলে গেছে। ধসে যাওয়া অংশ মাটি দিয়ে ভরাট করে রেখেছেন। কাজটি বাস্তবায়ন করেছে জান্নাত কনষ্ট্রাকশন লিমিটেড নামে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। তবে প্রতিষ্ঠানের মালিক অনেক প্রভাবশালী বলে জানা গেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার, যথাযথভাবে পাইলিং না করা ও রাস্তা ঘেঁষে ভেকু দিয়ে মাটি তুলে রাস্তায় দেয়ায় সড়কটি ধসে পড়েছে। এতে ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। এ ব্যাপারে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি মো. রহমত আলীর সাথে কথা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘দ্রæত আমরা ধসে যাওয়া সড়ক মেরামত করে দেব।’

এদিকে, গত ৫ সেপ্টেম্বর উপজেলার বাথানডাঙ্গা-সাতাশিয়া ভায়া মাহমুদপুর সড়কে তড়িঘড়ি করে রাতের আঁধারে পিচ ঢালাই দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। যা সকালেই সাধারণ মানুষের জুতার ঘষায় উঠে যায়। কার্যাদেশ না মেনে ও নামমাত্র বিটুমিন দিয়ে নিম্নমানের কাজ করায় এমনটা হয়।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয়দের অভিযোগ, ঠিকাদারের লোকজন স্থানীয়দের বাঁধা উপেক্ষা করে রাতের আধাঁরে রাস্তায় নিম্নমানের পিচের কার্পেটিয়ের কাজ করেছে। যা হাত দিয়ে টান দিলে বা পা দিয়ে ঘষা দিলেই উঠে গেছে। ২৫ মিমি কার্পেটিং করার কথা থাকলেও কিছু কিছু স্থানে ৫ থেকে ৭ মি.মি. কার্পেটিং করা হয়েছে। এতে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা।

জানা গেছে, ২০২১-২২ অর্থবছরে গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ৯৫ লাখ ৬২ হাজার ৮১৩ টাকা ব্যয়ে উপজেলার বাথানডাঙ্গা, সাতাশিয়া, ভায়া মাহমুদপুরে ১১০০ মিটার সড়ক প্রশস্তের কাজ হাতে নেয় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে কাজটি পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কেকেই-বিএসিকে (জেভি)। পরবর্তীতে তাদের কাছ থেকে কাজটি নেয় স্থানীয় ঠিকাদার এ্যাডভোকেট রাজিব।

এ বিষয়ে এলজিইডি প্রকৌশলী মো. মোরশেদুল হাসান রাতে কাজ করার কথা স্বীকার করে বলেন, ‘কাজ চলমান আছে। কোথাও কোন সমস্যা হলে ঠিক করে দেয়া হবে।’ কিন্তু তিন মাস অতিবাহিত হলেও; সড়কটি আজও সংস্কার বা মেরামত করে দেওয়া হয়নি। অথচ কাজের বিল তুলে নিয়েছেন ঠিকাদার।

অপরদিকে, ৫ কোটি ৮১ লাখ টাকা ব্যয়ে কাশিয়ানী উপজেলার দেবাশুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে গোপালগঞ্জ সদরের নিজড়া পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার রাস্তার পিচের কার্পেটিংয়ের কাজ চলছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) আওতায় কাজটি বাস্তবায়ন করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স কামরুল এ্যান্ড ব্রাদার্স। এ কাজ নিয়ে রয়েছে নানা অনিয়মের অভিযোগ। শুক্রবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, রাস্তার পাশ ঘেঁষে মাটি তুলে রাস্তায় দিচ্ছেন শ্রমিকরা। এতে রাস্তা ধসে খালের মধ্যে চলে যাওয়ার আশংকা করছেন স্থানীয়রা। এলাকাবাসী ঠিকাদারের লোকজনকে রাস্তার ঘেঁষে খাল থেকে মাটি তুলতে নিষেধ করলেও তা শুনছেন না তারা। এছাড়া কাজে নি¤œমানের ইট ব্যবহার করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন স্থানীয়রা।

এসব অনিয়মের অভিযোগের বিষয় উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী মো. মোরশেদুল হাসানের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি এসব অনিয়মের কথা স্বীকার করে বলেন, ‘কাজের অনিয়মের বিষয় খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাথানডাঙ্গা ত্রæটিপূর্ণ সড়ক মেরামত করে দেওয়ার কথা ছিল। ঘৃতকান্দি ভেঙে যাওয়া সড়ক মেরামত করে দেওয়া হবে। ডিসেম্বরের ৩০ তারিখ পর্যন্ত কাজের মেয়াদ রয়েছে।’




ফেসবুকে আমরা







x

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে এলজিইডির কাজে নয়ছয়

প্রকাশিত : ০৫:০০:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২
print news

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে এলজিইডির কাজে নয়ছয়

কাশিয়ানী (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে নয়ছয় করা হচ্ছে। নির্মাণের কাজ ও কার্যাদেশ না মেনে এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন ঠিকাদাররা। ঠিকাদাররা তাদের খেয়ালখুশিমতো কাজ করলেও নেয়া হচ্ছে না ব্যবস্থা। কাজের মান নিয়ে নানা ধরনের অভিযোগ থাকলেও সেগুলো ধামাচাপা পড়ে যাচ্ছে অদৃশ্য কারণে। শুধু কাজের ক্ষেত্রেই নয়, ঠিকাদারদের বিল পরিশোধের ক্ষেত্রেও নানা ধরনের অনিয়ম পরিলক্ষিত হচ্ছে।

অনুসন্ধানে উঠে এসেছে এমন নানা অনিয়মের চিত্র। এলজিইডির আওতায় ৬৩ লাখ ৬৬ হাজার টাকা ব্যয়ে উপজেলার রামদিয়া বাজার হতে ওড়াকান্দি ঠাকুর বাড়ি পর্যন্ত সড়কটির নির্মাণ শেষ হতে না হতেই ভেঙে গেছে। ২.৭ কিলোমিটার সড়কটির ৪০ স্থানেই ভেঙে গেছে। ঘৃতকান্দি এলাকায় তিনটি স্থানে সড়ক ধসে খালে মধ্যে চলে গেছে। ধসে যাওয়া অংশ মাটি দিয়ে ভরাট করে রেখেছেন। কাজটি বাস্তবায়ন করেছে জান্নাত কনষ্ট্রাকশন লিমিটেড নামে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। তবে প্রতিষ্ঠানের মালিক অনেক প্রভাবশালী বলে জানা গেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার, যথাযথভাবে পাইলিং না করা ও রাস্তা ঘেঁষে ভেকু দিয়ে মাটি তুলে রাস্তায় দেয়ায় সড়কটি ধসে পড়েছে। এতে ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। এ ব্যাপারে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি মো. রহমত আলীর সাথে কথা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘দ্রæত আমরা ধসে যাওয়া সড়ক মেরামত করে দেব।’

এদিকে, গত ৫ সেপ্টেম্বর উপজেলার বাথানডাঙ্গা-সাতাশিয়া ভায়া মাহমুদপুর সড়কে তড়িঘড়ি করে রাতের আঁধারে পিচ ঢালাই দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। যা সকালেই সাধারণ মানুষের জুতার ঘষায় উঠে যায়। কার্যাদেশ না মেনে ও নামমাত্র বিটুমিন দিয়ে নিম্নমানের কাজ করায় এমনটা হয়।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয়দের অভিযোগ, ঠিকাদারের লোকজন স্থানীয়দের বাঁধা উপেক্ষা করে রাতের আধাঁরে রাস্তায় নিম্নমানের পিচের কার্পেটিয়ের কাজ করেছে। যা হাত দিয়ে টান দিলে বা পা দিয়ে ঘষা দিলেই উঠে গেছে। ২৫ মিমি কার্পেটিং করার কথা থাকলেও কিছু কিছু স্থানে ৫ থেকে ৭ মি.মি. কার্পেটিং করা হয়েছে। এতে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা।

জানা গেছে, ২০২১-২২ অর্থবছরে গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ৯৫ লাখ ৬২ হাজার ৮১৩ টাকা ব্যয়ে উপজেলার বাথানডাঙ্গা, সাতাশিয়া, ভায়া মাহমুদপুরে ১১০০ মিটার সড়ক প্রশস্তের কাজ হাতে নেয় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে কাজটি পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কেকেই-বিএসিকে (জেভি)। পরবর্তীতে তাদের কাছ থেকে কাজটি নেয় স্থানীয় ঠিকাদার এ্যাডভোকেট রাজিব।

এ বিষয়ে এলজিইডি প্রকৌশলী মো. মোরশেদুল হাসান রাতে কাজ করার কথা স্বীকার করে বলেন, ‘কাজ চলমান আছে। কোথাও কোন সমস্যা হলে ঠিক করে দেয়া হবে।’ কিন্তু তিন মাস অতিবাহিত হলেও; সড়কটি আজও সংস্কার বা মেরামত করে দেওয়া হয়নি। অথচ কাজের বিল তুলে নিয়েছেন ঠিকাদার।

অপরদিকে, ৫ কোটি ৮১ লাখ টাকা ব্যয়ে কাশিয়ানী উপজেলার দেবাশুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে গোপালগঞ্জ সদরের নিজড়া পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার রাস্তার পিচের কার্পেটিংয়ের কাজ চলছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) আওতায় কাজটি বাস্তবায়ন করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স কামরুল এ্যান্ড ব্রাদার্স। এ কাজ নিয়ে রয়েছে নানা অনিয়মের অভিযোগ। শুক্রবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, রাস্তার পাশ ঘেঁষে মাটি তুলে রাস্তায় দিচ্ছেন শ্রমিকরা। এতে রাস্তা ধসে খালের মধ্যে চলে যাওয়ার আশংকা করছেন স্থানীয়রা। এলাকাবাসী ঠিকাদারের লোকজনকে রাস্তার ঘেঁষে খাল থেকে মাটি তুলতে নিষেধ করলেও তা শুনছেন না তারা। এছাড়া কাজে নি¤œমানের ইট ব্যবহার করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন স্থানীয়রা।

এসব অনিয়মের অভিযোগের বিষয় উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী মো. মোরশেদুল হাসানের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি এসব অনিয়মের কথা স্বীকার করে বলেন, ‘কাজের অনিয়মের বিষয় খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাথানডাঙ্গা ত্রæটিপূর্ণ সড়ক মেরামত করে দেওয়ার কথা ছিল। ঘৃতকান্দি ভেঙে যাওয়া সড়ক মেরামত করে দেওয়া হবে। ডিসেম্বরের ৩০ তারিখ পর্যন্ত কাজের মেয়াদ রয়েছে।’