ঢাকা ০১:৪৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ




কেশবপুরে ৪০ টাকা দরে আলু বিক্রি করছে ব্যবসায়িরা

আবু হুরাইরা রাসেল নিজস্ব প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত : ০৯:৩১:০০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০ ৯৭৫ বার পঠিত
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
print news

কেশবপুরে কৃষি অধিদপ্তর আলুর মূল্য নির্ধারণ করে দিলেও তা মানছেন না আলু ব্যবসায়ীরা। ৪০ টাকা দামেই বিক্রি হচ্ছে আলু। নিত্যপণ্যের উচ্চমূল্যের প্রেক্ষিতে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর দাম নির্ধারণ করে দিলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ব্যবসায়িরা তা উপেক্ষা করছেন। যা প্রভাব পড়ছে সাধারণ জনগনের উপর।

কিছু দিন আগে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি আলুর দাম ৩০ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছে। পাশাপাশি পাইকারি পর্যায়ে ২৫ টাকা আর হিমাগার পর্যায়ে কেজি ২৩ টাকা দরে বিক্রি করার নির্দেশ দেন।। পরবর্তীতে ২০ অক্টোবর যা হিমাগার পর্যায়ে কেজি ২৭ টাকা, পাইকারি পর্যায়ে ৩০ টাকা আর খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি আলুর দাম ৫ টাকা বাড়িয়ে ৩৫ টাকা পুনঃনির্ধারণ করে দিয়েছে।

ওখানকার বিভিন্ন খুচরা ও পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পাইকারি পর্যায়ে প্রতি কেজি আলু ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে যা আগের দামের সমান।

বিজ্ঞাপন

কেশবপুর পৌরসভার প্রধান চারানি কাঁচা বাজারে এক প্রতিনিধির সঙ্গে কথা হয় সব্জি ক্রেতা শামীম  আক্তারের সাথে । শুনেছি কৃষি বিপণন অধিদপ্তর আলুর দাম ৩০ টাকা করেছিল পরবর্তীতে ৫ টাকা বাড়িয়ে তা ৩৫ টাকা কেজিতে বিক্রি করতে বলেছে, কিন্তু ব্যবসায়িরা ৪০ টাকা দরে বিক্রি করছে।

ট্যাগস :




ফেসবুকে আমরা




x

কেশবপুরে ৪০ টাকা দরে আলু বিক্রি করছে ব্যবসায়িরা

প্রকাশিত : ০৯:৩১:০০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০
print news

কেশবপুরে কৃষি অধিদপ্তর আলুর মূল্য নির্ধারণ করে দিলেও তা মানছেন না আলু ব্যবসায়ীরা। ৪০ টাকা দামেই বিক্রি হচ্ছে আলু। নিত্যপণ্যের উচ্চমূল্যের প্রেক্ষিতে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর দাম নির্ধারণ করে দিলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ব্যবসায়িরা তা উপেক্ষা করছেন। যা প্রভাব পড়ছে সাধারণ জনগনের উপর।

কিছু দিন আগে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি আলুর দাম ৩০ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছে। পাশাপাশি পাইকারি পর্যায়ে ২৫ টাকা আর হিমাগার পর্যায়ে কেজি ২৩ টাকা দরে বিক্রি করার নির্দেশ দেন।। পরবর্তীতে ২০ অক্টোবর যা হিমাগার পর্যায়ে কেজি ২৭ টাকা, পাইকারি পর্যায়ে ৩০ টাকা আর খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি আলুর দাম ৫ টাকা বাড়িয়ে ৩৫ টাকা পুনঃনির্ধারণ করে দিয়েছে।

ওখানকার বিভিন্ন খুচরা ও পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পাইকারি পর্যায়ে প্রতি কেজি আলু ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে যা আগের দামের সমান।

বিজ্ঞাপন

কেশবপুর পৌরসভার প্রধান চারানি কাঁচা বাজারে এক প্রতিনিধির সঙ্গে কথা হয় সব্জি ক্রেতা শামীম  আক্তারের সাথে । শুনেছি কৃষি বিপণন অধিদপ্তর আলুর দাম ৩০ টাকা করেছিল পরবর্তীতে ৫ টাকা বাড়িয়ে তা ৩৫ টাকা কেজিতে বিক্রি করতে বলেছে, কিন্তু ব্যবসায়িরা ৪০ টাকা দরে বিক্রি করছে।