ঢাকা ০১:০৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ




ইপিজেড এলাকায় মমতা মাতৃসদন থেকে চুরি হয়ে যাওয়া নবজাতক উদ্ধার ও মূল আসামী শিমু দাশসহ আটক-০৫  

মোঃ তপু মাঝি, চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ
  • প্রকাশিত : ১২:৫৮:১৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩১ অগাস্ট ২০২২ ১৪৬ বার পঠিত
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
print news

ইপিজেড এলাকায় মমতা মাতৃসদন থেকে চুরি হয়ে যাওয়া নবজাতক উদ্ধার ও মূল আসামী শিমু দাশসহ আটক-০৫  

মো: তপু মাঝি, চট্টগ্রাম: আনোয়ারা বার খাইন এলাকা থেকে ৩০ আগস্ট ভোর ৩ ঘটিকায় ইপিজেড‌ থানা পুলিশের অভিযানে মূল আসামি শিমু দাশ সহ ৫ জনকে আটক  করেছেন বলে জানিয়েছেন নবাগত ওসি আব্দুল করিম।

তিনি আরো বলেন, আজ মঙ্গলবার (৩০আগষ্ট) দুপুরে নগরীর ইপিজেড থানা এক প্রেসব্রিফিংয়ে বন্দরটিলাস্থ মমতা মাতৃসদন থেকে নবজাতক চুরির ঘটনা প্রসঙ্গ বলেন, মূল আসামি শিমু দাশ (শিমু মল্লিক) দীর্ঘদিন ধরে নিঃসন্তান হয়ে পরিবারের মাধ্যমে নির্যাতন ও নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন,তা পরিবারের সদস্যদের খুশি করতেই মমতার অফিসার মোঃ মোর্শেদ আলমের সহায়তা পরিকল্পনা করে একদিনের নবজাতক চুরির ঘটনা ঘটিয়েছে।

এতে তার স্বামী রিমল মল্লিক ও মমতার অফিসার মোঃ মোর্শেদ আলম, সহকারী মোঃ সেলিম, মোঃ আবুল কাশেমসহ আরো ২/৩জন লোক এই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ/এজাহার দায়ের করেন নবজাতক শিশুর পিতা মোঃ শহিদুল ইসলাম (২৯)। মামলার সূত্রে জানা গেছে, প্রধান আসামি শিমু দাশ, স্বামী রিমল মল্লিক এর গ্রামের বাড়ি আনোয়ারা উপজেলার পূর্ব বারখাইন এলাকায়। এদিকে বাদী(শিশুর) পিতা শহিদুল ইসলাম এর গ্রামের বাড়ি ও আনোয়ারা উপজেলার ৩নং রায়পুর ইউনিয়নে।

বিজ্ঞাপন

এব্যাপারে মমতার সিনিয়র সহ- পরিচালক মিসেস স্বপ্না তালুকদার বলেন, আমি খবর পেয়ে থানায় এসে মূল বিষয়টি জেনেছি। পুলিশ জানায় তার অফিসের স্টাফদের সহায়তা এই চুরির ঘটনা ঘটেছে। তিনি বলেন,কেউ অন্যায় করলে তাকে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে।

বাদী শহিদুল ইসলাম বলেছেন, দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা সহ কঠোর শাস্তির দাবি জানান।

ইপিজেড থানার ওসি আব্দুল করিম বলেন, থানার সংগীয় ফোর্স সহ দীর্ঘ ৩৫ ঘন্টা অভিযানে মূল আসামি শিমু দাশ সহ ৫ সন্দেহজনক আসামিদের আটক করে মামলা নং ২৯/২৯,২০২২ইং দায়ের করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। শিশু কে তার পরিবারের সদস্যদের কাছে ফেরত দেওয়া হয়েছে।

 




ফেসবুকে আমরা







x

ইপিজেড এলাকায় মমতা মাতৃসদন থেকে চুরি হয়ে যাওয়া নবজাতক উদ্ধার ও মূল আসামী শিমু দাশসহ আটক-০৫  

প্রকাশিত : ১২:৫৮:১৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩১ অগাস্ট ২০২২
print news

ইপিজেড এলাকায় মমতা মাতৃসদন থেকে চুরি হয়ে যাওয়া নবজাতক উদ্ধার ও মূল আসামী শিমু দাশসহ আটক-০৫  

মো: তপু মাঝি, চট্টগ্রাম: আনোয়ারা বার খাইন এলাকা থেকে ৩০ আগস্ট ভোর ৩ ঘটিকায় ইপিজেড‌ থানা পুলিশের অভিযানে মূল আসামি শিমু দাশ সহ ৫ জনকে আটক  করেছেন বলে জানিয়েছেন নবাগত ওসি আব্দুল করিম।

তিনি আরো বলেন, আজ মঙ্গলবার (৩০আগষ্ট) দুপুরে নগরীর ইপিজেড থানা এক প্রেসব্রিফিংয়ে বন্দরটিলাস্থ মমতা মাতৃসদন থেকে নবজাতক চুরির ঘটনা প্রসঙ্গ বলেন, মূল আসামি শিমু দাশ (শিমু মল্লিক) দীর্ঘদিন ধরে নিঃসন্তান হয়ে পরিবারের মাধ্যমে নির্যাতন ও নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন,তা পরিবারের সদস্যদের খুশি করতেই মমতার অফিসার মোঃ মোর্শেদ আলমের সহায়তা পরিকল্পনা করে একদিনের নবজাতক চুরির ঘটনা ঘটিয়েছে।

এতে তার স্বামী রিমল মল্লিক ও মমতার অফিসার মোঃ মোর্শেদ আলম, সহকারী মোঃ সেলিম, মোঃ আবুল কাশেমসহ আরো ২/৩জন লোক এই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ/এজাহার দায়ের করেন নবজাতক শিশুর পিতা মোঃ শহিদুল ইসলাম (২৯)। মামলার সূত্রে জানা গেছে, প্রধান আসামি শিমু দাশ, স্বামী রিমল মল্লিক এর গ্রামের বাড়ি আনোয়ারা উপজেলার পূর্ব বারখাইন এলাকায়। এদিকে বাদী(শিশুর) পিতা শহিদুল ইসলাম এর গ্রামের বাড়ি ও আনোয়ারা উপজেলার ৩নং রায়পুর ইউনিয়নে।

বিজ্ঞাপন

এব্যাপারে মমতার সিনিয়র সহ- পরিচালক মিসেস স্বপ্না তালুকদার বলেন, আমি খবর পেয়ে থানায় এসে মূল বিষয়টি জেনেছি। পুলিশ জানায় তার অফিসের স্টাফদের সহায়তা এই চুরির ঘটনা ঘটেছে। তিনি বলেন,কেউ অন্যায় করলে তাকে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে।

বাদী শহিদুল ইসলাম বলেছেন, দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা সহ কঠোর শাস্তির দাবি জানান।

ইপিজেড থানার ওসি আব্দুল করিম বলেন, থানার সংগীয় ফোর্স সহ দীর্ঘ ৩৫ ঘন্টা অভিযানে মূল আসামি শিমু দাশ সহ ৫ সন্দেহজনক আসামিদের আটক করে মামলা নং ২৯/২৯,২০২২ইং দায়ের করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। শিশু কে তার পরিবারের সদস্যদের কাছে ফেরত দেওয়া হয়েছে।