ঢাকা ০২:৪৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :




বিষ মুক্ত আসল স্বাদে ফিরেছে মধুপুরের আনারস

মোঃ সুজন মাহমুদ,মধুপুর (টাংগাইল) প্রতিনিধিঃ
  • প্রকাশিত : ০৭:৪৪:০৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ জুলাই ২০২১ ১০৩৬ বার পঠিত
কালের ধারা ২৪, অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
বিজ্ঞাপন
print news

মোঃ সুজন মাহমুদ,মধুপুর (টাংগাইল) প্রতিনিধিঃ বিষাক্ত রাসায়নিক আর হরমোনের ব্যবহারের কারণে টাঙ্গাইলের মধুপরের ঐতিহ্যবাহী আনারসের উপর থেকে দিন দিন ভোক্তাদের আগ্রহ হারিয়ে যাচ্ছিল। সেই সময় কয়েকজন শিক্ষিত ও সমাজের উপর প্রতিশ্রতিশীল যুবক এগিয়ে এসে রাসায়নিক ও হরমোনবিহীন আনারস চাষ করে আনারসের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে চেষ্টারত আছেন। ফলে মধুপুরের ঐতিহ্যবাহী সুস্বাদু জলডুগি ও ক্যালেন্ডার জাতের আনারস চাষে এক বিপ্লব শুরু হতে যাচ্ছে। দাম একটু বেশি হলেও ক্রেতারা এখন সচেতন। উৎপাদক-ভোক্তা সচেতনায় মধুপুরের আনারস তার হারোনো গৌরব ফিরে পেতে যাচ্ছে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সমাজের সচেতন মহল।

বিজ্ঞাপন

আনারসের এই বিপ্লবের অগ্রদূত হলেন, মধুপুর উপজেলার গারোবাজারের ছানোয়ার হোসেন মহিষমারা ইউনিয়নের হলদিয়া গ্রামের আনারস চাষী মো. নজরুল ইসলাম। তারা স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের বেশ কয়েকটি জেলায় পৌঁছে দিচ্ছেন বিষ ও রাসায়নিক মুক্ত আনারস। আনারস চাষী নজরুল ইসলাম মনে করেন, এই ধরনের চাষাবাদ অনৈতিক, জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকী এবং পরিবেশ ও জীব-বৈচিত্র্য ধ্বংসকারী। তাই চাকুরির পাশাপাশি নিজের জমিতে তিনি চাষ করেছেন জৈব সার প্রয়োগ করে দুই জাতের আনারস। তিনি আনারসেরঅকাল বৃদ্ধি ও অতি মুনাফার লোভে হরমোনের প্রয়োগ করেন নাই, আবার দ্রত পাকানো ও ভাল রঙের জন্য রাইপেন নামক বিষাক্ত কেমিক্যালও ব্যবহার করেন নাই। তিনি আরও জানান, দীর্ঘদিন ধরেই মধুপুরের আনারস চাষীরা কখনও লোভে বা অসাধু ব্যবসায়ী বেপারীদের খপ্পরে পড়ে একাধিক জাতের আনারস চাষে বিবিধ রাসায়নিক ব্যবহার করে আসছেন।

তিনি আরো জানান, এবছর কেমিকেল বিহীন আনারস চাষে বিনিয়োগ করেছেন তিন লাখ টাকা। আশা করছেন তার বাগানের ফল ৯ থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করতে পারবেন। আগামী বছরে আনারসের এই চাষ আরও বৃদ্ধি করবেন বলে সাংবাদিকদের জানান। মধুপুরে কেমিকেল মুক্ত আনারস চাষের অগ্রদূত ছানোয়ার হোসেন। তিনি একজন উচ্চ শিক্ষিত আনারস চাষী। তিনি বলেন, আমার চাষাবাদ দেখে ও চাহিদার কারণে স্থানীয়ভাবে অনেকেই এ আবাদে উৎসাহিত হয়েছে। এতে ভাল দামও পাচ্ছেন তারা। নিরাপদ খাদ্য আন্দোলনের তরুণ শিক্ষিত কর্মী ও নিরাপদ খাদ্য বিপণনের পথিকৃৎ টাঙ্গাইলের আওয়াল মাহমুদ জানান, কেমিকেল মুক্ত আনারসের চাহিদা ব্যাপক। এতে আমি যেমন লাভবান হচ্ছি, তেমনি অন্যান্য চাষীরাও লাভবান হচ্ছেন। আরভোক্তারা পাচ্ছেন নিরাপদ ফল। তিনি আরো জানান, আমি এবার ৫০ হাজার জলডুগি এবং ২০ হাজার ক্যালেন্ডার জাতের আনারস ক্রয় করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিক্রি করেছি। হরমোন ও রাইপেন মুক্ত আনারস যেখানে ২৫-৩০ টাকায় বিক্রি হয়, সেখানে বিষমুক্ত জলডুগি আনারস ৫০ টাকা এবং ক্যালেন্ডার আনারস ৭০-৮০ টাকায় নির্দ্বিধায় বিক্রি করা যায়।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ রেলওয়ে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির অনুমোদন 

ট্যাগস :




ফেসবুকে আমরা







x

বিষ মুক্ত আসল স্বাদে ফিরেছে মধুপুরের আনারস

প্রকাশিত : ০৭:৪৪:০৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ জুলাই ২০২১
বিজ্ঞাপন
print news

মোঃ সুজন মাহমুদ,মধুপুর (টাংগাইল) প্রতিনিধিঃ বিষাক্ত রাসায়নিক আর হরমোনের ব্যবহারের কারণে টাঙ্গাইলের মধুপরের ঐতিহ্যবাহী আনারসের উপর থেকে দিন দিন ভোক্তাদের আগ্রহ হারিয়ে যাচ্ছিল। সেই সময় কয়েকজন শিক্ষিত ও সমাজের উপর প্রতিশ্রতিশীল যুবক এগিয়ে এসে রাসায়নিক ও হরমোনবিহীন আনারস চাষ করে আনারসের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে চেষ্টারত আছেন। ফলে মধুপুরের ঐতিহ্যবাহী সুস্বাদু জলডুগি ও ক্যালেন্ডার জাতের আনারস চাষে এক বিপ্লব শুরু হতে যাচ্ছে। দাম একটু বেশি হলেও ক্রেতারা এখন সচেতন। উৎপাদক-ভোক্তা সচেতনায় মধুপুরের আনারস তার হারোনো গৌরব ফিরে পেতে যাচ্ছে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সমাজের সচেতন মহল।

বিজ্ঞাপন

আনারসের এই বিপ্লবের অগ্রদূত হলেন, মধুপুর উপজেলার গারোবাজারের ছানোয়ার হোসেন মহিষমারা ইউনিয়নের হলদিয়া গ্রামের আনারস চাষী মো. নজরুল ইসলাম। তারা স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের বেশ কয়েকটি জেলায় পৌঁছে দিচ্ছেন বিষ ও রাসায়নিক মুক্ত আনারস। আনারস চাষী নজরুল ইসলাম মনে করেন, এই ধরনের চাষাবাদ অনৈতিক, জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকী এবং পরিবেশ ও জীব-বৈচিত্র্য ধ্বংসকারী। তাই চাকুরির পাশাপাশি নিজের জমিতে তিনি চাষ করেছেন জৈব সার প্রয়োগ করে দুই জাতের আনারস। তিনি আনারসেরঅকাল বৃদ্ধি ও অতি মুনাফার লোভে হরমোনের প্রয়োগ করেন নাই, আবার দ্রত পাকানো ও ভাল রঙের জন্য রাইপেন নামক বিষাক্ত কেমিক্যালও ব্যবহার করেন নাই। তিনি আরও জানান, দীর্ঘদিন ধরেই মধুপুরের আনারস চাষীরা কখনও লোভে বা অসাধু ব্যবসায়ী বেপারীদের খপ্পরে পড়ে একাধিক জাতের আনারস চাষে বিবিধ রাসায়নিক ব্যবহার করে আসছেন।

তিনি আরো জানান, এবছর কেমিকেল বিহীন আনারস চাষে বিনিয়োগ করেছেন তিন লাখ টাকা। আশা করছেন তার বাগানের ফল ৯ থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করতে পারবেন। আগামী বছরে আনারসের এই চাষ আরও বৃদ্ধি করবেন বলে সাংবাদিকদের জানান। মধুপুরে কেমিকেল মুক্ত আনারস চাষের অগ্রদূত ছানোয়ার হোসেন। তিনি একজন উচ্চ শিক্ষিত আনারস চাষী। তিনি বলেন, আমার চাষাবাদ দেখে ও চাহিদার কারণে স্থানীয়ভাবে অনেকেই এ আবাদে উৎসাহিত হয়েছে। এতে ভাল দামও পাচ্ছেন তারা। নিরাপদ খাদ্য আন্দোলনের তরুণ শিক্ষিত কর্মী ও নিরাপদ খাদ্য বিপণনের পথিকৃৎ টাঙ্গাইলের আওয়াল মাহমুদ জানান, কেমিকেল মুক্ত আনারসের চাহিদা ব্যাপক। এতে আমি যেমন লাভবান হচ্ছি, তেমনি অন্যান্য চাষীরাও লাভবান হচ্ছেন। আরভোক্তারা পাচ্ছেন নিরাপদ ফল। তিনি আরো জানান, আমি এবার ৫০ হাজার জলডুগি এবং ২০ হাজার ক্যালেন্ডার জাতের আনারস ক্রয় করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিক্রি করেছি। হরমোন ও রাইপেন মুক্ত আনারস যেখানে ২৫-৩০ টাকায় বিক্রি হয়, সেখানে বিষমুক্ত জলডুগি আনারস ৫০ টাকা এবং ক্যালেন্ডার আনারস ৭০-৮০ টাকায় নির্দ্বিধায় বিক্রি করা যায়।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ রেলওয়ে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির অনুমোদন